download

চবিতে ভর্তি আবেদনের সময় বাড়লো, পেছাতে পারে পরীক্ষা

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি

সবুজ আহমেদ, চবি প্রতিনিধিঃ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ (সম্মান) ভর্তি পরীক্ষার আবেদন প্রক্রিয়া শুরুর ১৬ দিনে আবেদন করেছেন ১ লাখ ৬৩ হাজার ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী। অন্যদিকে নির্ধারিত সময়ের কিছুদিন পর ভর্তি পরীক্ষার আবেদন গ্রহণ শুরু হওয়ায় আবেদনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে আরও এক সপ্তাহ। ফলে আবেদনের সময় শেষ হচ্ছে আগামী ৭ মে রাত ১১ টা ৫৯ মিনিটে। তবে টাকা জমা দেওয়া যাবে ৯ মে রাত ১১ টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত।

বুধবার (২৮ এপ্রিল) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটির এক সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় । বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন প্রফেসর এস এম সালামত উল্যা ভূঁইয়া। তিনি বলেন, নির্ধারিত সময়ের পাঁচদিন পর আবেদন শুরু হওয়ায় এবং দুইদিন সার্ভারে ঝামেলা করায় আবেদনের সময় এক সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে। ফলে আবেদনের সময় শেষ হচ্ছে আগামী ৭ মে রাত ১১ টা ৫৯ মিনিটে। তবে তবে ৯ মে রাত ১১ টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত টাকা জমা দেওয়া যাবে।

চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। ছবি- সংগৃহীত
উল্লেখ্য আগামী ২২ জুন থেকে ইউনিট অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। তবে চলমান করোনাভাইরাসের কারণে সেই পরীক্ষা পেছাতে পারে। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা বলছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

কর্তৃপক্ষের সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষা হবে আগামী ২২ ও ২৩ জুন, ‘ডি’ ইউনিটে ২৪ ও ২৫ জুন, ‘এ’ ইউনিটে ২৮ ও ২৯ জুন, ‘সি’ ইউনিটে ৩০ জুন এবং ‘বি-১’ ও ‘ডি-১’ উপ-ইউনিটে ১ জুলাই।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানিয়েছে, দেশে যে হারে করোনায় মানুষ মারা যাচ্ছে, এই অবস্থা অব্যাহত থাকলে ২২ জুন থেকে ভর্তি পরীক্ষা শুরু করা সম্ভব হবে না। কেননা ভর্তিচ্ছুদের পাশাপাশি শিক্ষকদেরও নিরাপত্তার বিষয়টি রয়েছে। ফলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত পরীক্ষা আয়োজনের সম্ভাবনা নেই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক অনুষদের ডিনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, করোনা মহামরীর প্রকোপ কমে না আসলে পরীক্ষা পেছানো হতে পারে। তারা বলছেন, এখনই এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার কিছু নেই। করোনা পরিস্থিতি কোন দিকে যায় সেটি দেখেই তারা সিদ্ধান্ত নিতে চান তারা। পরিস্থিতি যদি ভালো হয়ে যায় তাহলে যথা সময়েই ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার বলেন, করোনা সংক্রমণের হার না কমলে বা পরিস্থিতি আরও নাজুক হলে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পেছানো হবে। তবে এটি নিয়ে এখনো কোনো আলোচনা হয়নি।

উপাচার্য বলেন, ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া শেষ হলে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। ইতিমধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষার তারিখ পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। সে হিসেবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাও পেছানো হতে পারে।

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *